FreelancerStory.Com

ইন্টারনেটে কাজ করুন ঘরে বসে বৈদেশিক মুদ্রা আয় করুন

ফাইভার-এ শুরু হোক ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার

ফাইভার শপিং ধারনার উপর প্রতিষ্ঠিত সার্ভিস কেনাবেচার অনলাইন মার্কেট

ফাইভার (www.fiverr.com) হচ্ছে দ্রুত জনপ্রিয় হওয়া একটি আন্তর্জাতিক অনলাইন মার্কেটপ্লেস যেখানে ফ্রিল্যান্সাররা (সাধারণত সেলার হিসেবে অভিহিত) তাদের কর্মপরিধি ও দক্ষতা সাপেক্ষে বায়ারদের জন্য উপযোগি সার্ভিসের বিভিন্ন প্যাকেজ তৈরি করে তা বিক্রির জন্য পসরা সাজিয়ে বসেন। ফাইভারে এরকরম এক বা একাধিক প্যাকেজ মিলে তৈরি সার্ভিসগুলো গিগ নামে পরিচিত যার মূল্য ৫ ডলার থেকে শুরু করে ৫০০ ডলার পর্যন্ত হয়ে থাকে। উল্লেখ্য, প্রতি ৫ ডলার মূল্যের গিগ বিক্রিতে ফাইভার সেলারকে ১ ডলার চার্জ করে; অর্থাৎ যেকোনো পরিমান সেলের ২০% কাটা গিয়ে ৮০% রেভিনিউ সেলারের অ্যাকাউন্টে জমা হয়। যাই হোক, বর্তমানে ফাইভারে বিভিন্ন সার্ভিসের উপর ৩০ লক্ষেরও অধিক গিগ অফার রয়েছে। Shai Wininger  এবং  Micha Kaufman কর্তৃক ২০০৯ সালে ফাইভার প্রতিষ্ঠিত হয়, যার হেডকোয়ার্টার ইসরাইলের তেল-আবিব এ অবস্থিত।

 

Fiverr-Jobs


Fiverr Tutorial Part 01: About Fiverr



ফাইভার-এর স্বতন্ত্র বৈশিষ্ঠ

অন্যান্য ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস থেকে ফাইভার নানা গুরুত্বপূর্ণ দিক দিয়ে আলাদা এবং খুবই ফ্রিল্যান্সার-ফ্রেন্ডলি। প্রথমত, অন্যান্য মার্কেটপ্লেসে যেমন কাজ শুরু করার জন্য অ্যাকাউন্ট তৈরি থেকে শুরু করে প্রফাইল ও পোর্টফোলিও সাজানোর প্রক্রিয়াটি তুলনামূলক জটিল ও সময়স্বাপেক্ষ, সেখানে ফাইভারে অ্যাকাউন্ট তৈরি করে মোটামুটি কিছু বেসিক অ্যাকাউন্ট সেটিংস করে নিয়েই কাজ স্টার্ট করা যায়। দ্বিতিয়ত, প্রায় সকল ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেসেই ক্লায়েন্টরা তাদের নিজেদের কাজের প্রয়োজনীয় সার্ভিসটি প্রজেক্ট আকারে পোস্ট করে থাকেন এবং ফ্রিল্যান্সাররা কাজটি পাওয়ার জন্য একটি সুবিবেচিত বিডিং, অভিজ্ঞতাস্বরুপ সমজাতীয় কিছু নমুনা কাজের লিংকসহ একটি আবেদনপত্র ক্লায়েন্ট বরাবর সাবমিট করে থাকেন। সেক্ষেত্রে শ থেকে শুরু করে হাজারেরও অধিক ফ্রিল্যান্সার আবেদন করে থাকেন এবং ক্লায়েন্ট বিভিন্ন বিষয় পর্যবেক্ষন করে পছন্দমত কিছু আবেদনকারির ইন্টারভিউ নিয়ে এদের মধ্যে একজনকেই ঐ নির্দিষ্ঠ প্রজেক্টটি দিয়ে থাকেন। সেজন্য এসব মার্কেটপ্লেসে কাজ পাওয়া তুলনামূলক বেশি প্রতিযোগিতাপূর্ণ হয়। অন্যদিকে ফাইভার-এর ক্ষেত্রে ফ্রিল্যান্স প্রফেশনালরা নিজেরাই কোনো বিষয়ে তাদের দক্ষতাকে নির্দিষ্ট মূল্যের ছোট ছোট গিগ আকারে সাজিয়ে ক্লায়েন্টের কাছে উপস্থাপন করেন এবং ক্লায়েন্ট তার প্রয়োজনীয় গিগটি অর্ডার করেন। তৃতীয়ত,  অন্যান্য মার্কেটপ্লেসে একটি প্রজেক্ট শেষ হওয়ার পর তার আর কোনো কার্যকারিতা থাকেন, কিন্তু ফাইভার-এ একটি গিগ একই এবং ভিন্ন ক্লায়েন্টের কাছে একাধিকবার বিক্রি হয়ে থাকে। পাশাপাশি এডিশনাল ফিচারস সম্বলিত এসব গিগের এক্সটেন্ডেড গিগ-ভার্সনগুলো ক্লায়েন্টের কাছে অফার করে ফ্রিল্যান্সাররা প্রচুর আপসেলিং করে থাকেন। সর্বোপরি, সাধারনত মার্কেটপ্লেসগুলোতে কোনো প্রজেক্টে কাজ করতে হলে ঐ প্রজেক্টের রিক্যয়ারমেন্টের পাশাপাশি প্রাসঙ্গিক অন্যান্য বিষয়েও গভীর ধারণা ও জ্ঞান থাকা অনেক ক্ষেত্রেই বাধ্যতামূলক; কিন্তু ফাইভার-ই সম্ভবত একমাত্র মার্কেটপ্লেস যেখানে ন্যুনতম মাত্র ৫ ডলার মূল্যের কাজ জানা আছে এমন যেকেউ ঐ মূল্যের একটি গিগ তৈরি করে বায়ারদের কাছে অফার করতে পারেন।

কাজের ধরণ

মূলত ডিজিটাল সার্ভিস কেনাবেচার জন্য একটি দ্বিমুখি (শুধুমাত্র বায়ার এবং সেলার সমন্বয়ে) প্লাটফর্ম হিসেবে ফাইভার প্রতিষ্ঠিত হয়, যেখানে বিভিন্ন ক্যাটাগরির সার্ভিসের মধ্যে রয়েছে – গ্রাফিক্স এন্ড ডিজাইন, ডিজিটাল মার্কেটিং, রাইটিং এন্ড ট্র্যান্সল্যাশন, ভিডিও এন্ড এনিম্যাশন, মিউজিক এন্ড অডিও, প্রোগ্রামিং এন্ড টেকনোলোজি, এডভার্টাইজিং ও বিজিনেসসহ অন্যান্য। আর এসব ক্যাটাগরির অধীনে রয়েছে আরো হাজারো রকমের সাব ক্যাটাগরির সমাবেশ। উদাহরণস্বরূপ, গ্রাফিক্স এন্ড ডিজাইন ক্যাটাগরির কাজের মধ্যে রয়েছে লোগো ডিজাইন, বিজিনেস কার্ড এন্ড স্টেশনারি, ফ্লায়ারস এন্ড পোস্টারস, ব্যনারস এডস, ইল্যাস্ট্রেশন, কার্টুন এন্ড ক্যারিক্যাচারস, ফটোশপ এডিটিং, বুক কাভারস এন্ড প্যাকেজিং, ইনভাইটেশনস, ওয়েব এন্ড মোবাইল ডিজাইন, টি-শার্ট, সোশ্যাল মিডিয়া ডিজাইন, ইনফোগ্রাফিক্স ইত্যাদি। এভাবে প্রত্যেক ক্যাটাগরির সার্ভিসের জন্যই রয়েছে এরকম অসংখ্য নির্দিষ্ঠ কাজের সাবক্যাটাগরি। অর্থাৎ এমন কোনো দক্ষতাসম্পন্ন ব্যক্তি হয়তো খুজে পাওয়া যাবেনা যার জন্য ফাইভার-এ কাজের কোনো ক্ষেত্র নেই।

বিভিন্ন ক্যাটাগরির কাজের কয়েকটি গিগ পর্যালোচনা করলেই সেসব কাজের আওতা ও পরিধি সম্পর্কে আরো পরিস্কার ধারণা পাওয়া যাবে; ফাইভারে ওয়েবডিজাইন ক্যাটাগরির কয়েকটি গিগ-এর টাইটেল এরকম -# I will design and develop fully responsive website for $5 # I will make Professional and good looking Websites and solve issues for $5 # I will customize or edit your website Design # I will give you clean HTML coming soon page for $5.


Fiverr Tutorial Part 02: Introduction, What is fiverr? How to work on fiverr


একটি নির্বাচিত গিগের গাঠনিক উপাদান

    একটি আদর্শ গিগ কি কি এলিমেন্ট নিয়ে গঠিত তার ধারণা দিতে নিচে ফাইভারে গ্রাফিক্স ক্যাটাগরির একটি ফিচারড গিগ নিয়ে আলোচনা করা হল।

gig

আলোচ্য গিগটি পোস্ট করেছেন jhonmlo44, যিনি  শ্রীলংকা থেকে ফাইভারের একজন টপ রেটেড সেলার। মূলত স্ট্যান্ডার্ড, প্রিমিয়াম এবং প্রো- এই তিনটি প্যাকেজের সমন্বয়ে গিগটি গঠিত।
 
গিগ টাইটেলঃ  I will design professional smashing 2 sided printable business card
 
প্যাকেজ টাইপ-১ ব্রোঞ্জ প্যাকেজ ডিটেইলসঃ  # $5 Standard  #3 days Delivery # 5 Revisions # Just Only The Business Card with Print Ready Files (Print-Ready, Double-Side, 1 Concept)
 
প্যাকেজ টাইপ-২ সিলভার প্যাকেজ ডিটেইলসঃ  # $30 Premium  # 4 days Delivery # Unlimited Revisions # Business Card + Logo with Print Ready Files (Print-Ready, Source File, Double-Side, 1 Concept)
 
প্যাকেজ টাইপ-৩ গোল্ড প্যাকেজ ডিটেইলসঃ  # $70 Pro # 6 days Delivery # Unlimited Revisions # Business Card + Envelop Design + Letter Head + Facebook Cover + Logo  (Print-Ready, Source File, Double-Side, 1 Concept)
 
গিগ পর্যালোচনাঃ গিগটিতে কাভার হিসেবে ইমেজের পরিবর্তে একটি অ্যানিমেটেড ভিডিও ক্লিপ ব্যবহার করা হয়েছে যা খুবই কার্যকরি। সেলার গিগটিতে প্যাকেজগুলোর মূল্য নির্ধারণ করেছেন যথাক্রমে ৫, ৩০ ও ৭০ ডলার এবং অর্ডারগুলো যথাক্রমে ৩ দিন, ৪ দিন ও ৬ দিনে ডেলিভারিযোগ্য। বিভিন্ন প্যাকেজের আওতায় সার্ভিসের ভেরিয়েশন খেয়াল করলে দেখা যায় প্রথম প্যকেজের সাথে শুধুমাত্র প্রিন্টরেডি বিজিনেস কার্ডটি ডিজাইন করে দেয়া হবে এবং বায়ারের অনুরোধে সর্বোচ্চ ৫ বার কাজটি রিভিশন দেয়া হবে। আবার সিলভার প্যাকেজটির আওতায় কার্ডটির পাশাপাশি একটি লোগোও ডিজাইন করে দেয়া হবে এবং কাজগুলোর জন্য আনলিমিটেড রিভিশন অফার আছে। আবার গোল্ড প্যাকেজটিতে বিজিনেস কার্ডের সাথে একটি এনভেলপ, একটি লেটার হেড এবং ফেসবুক কাভার ইমেজ ডিজাইন করে দেয়া হবে; এক্ষেত্রেও আনলিমিটেড রিভিশনের সু্যোগ আছে। সুতরাং বায়ার তার বাজেট এবং রিক্যয়ারমেন্ট অনুযায়ি যেকোনো প্যাকেজ অর্ডার করতে পারে।
 

নবীণ ফ্রিল্যান্সারদের জন্য আদর্শ মার্কেটপ্লেস

ফাইভারে কাজের ধরন এবং এর ওয়েবসাইটের সাবলিল গঠনকাঠামো ও ব্যবস্থাপনা নিঃসন্দেহে নতুন ফ্রিল্যান্সারদের জন্য খুবই সুবিধাজনক এবং কার্যকরি। সাধারনত নতুন ফ্রিল্যান্সারদের শুরুতেই বড় প্রজেক্টে কাজ করার প্রয়োজনীয় জ্ঞান ও দক্ষতা থাকেনা; সেজন্য তাদের ঐ বিষয়ে ব্যাপক অভিজ্ঞতা থাকার সম্ভাবনাও কম। অন্যান্য মার্কেটপ্লেসে ক্লায়েন্ট যেহেতু একজন ফ্রিল্যান্সা্রের এসব বিষয়ে সন্তুষ্ঠ হলে পরেই প্রজেক্টে নিয়োজিত করে সেহেতু তাদের জন্য শুরুর দিকে কাজ পাওয়া অনেক ক্ষেত্রেই কঠিন হয়ে পড়ে। কিন্তু ফাইভার-এ নতুন ফ্রিল্যান্সাররা তাদের অর্জিত দক্ষতাকে ছোট ছোট সার্ভিসে ভাগ করে বিভিন্ন মূল্যমানের ছোট ছোট গিগ আকারে সাজাতে পারেন এবং গিগগুলো কিছু সহজ কৌশল অবলম্বন করে প্রমোট করার মাধ্যমে সেল করতে পারেন। ভালো গিগস তৈরির (গিগ ফটোস, গিগ এক্সট্রাস, এসইও অপটিমাইজড গিগ টাইটেলস)  কৌশল সম্পর্কে জানতে ফাইভার একডেমির আর্টিক্যালসগুলো  (https://www.fiverr.com/academy/tips-tricks) পড়তে পারেন।

*** পরবর্তি আর্টিক্যালে অ্যাকাউন্ট তৈরি এবং অ্যাকাউন্ট সেটিংস, একটি আদর্শ গিগ তৈরির প্রক্রিয়া, গিগ প্রমোশন আইডিয়াস, আপসেলিং স্ট্র্যাটেজি-সহ ফাইভারে সফলতার বিভিন্ন টিপস ও ট্রিকস নিয়ে আলোচনা করা হবে। শুভকামনা।  

 

ফাইভার-এ শুরু হোক ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার – ২য় পর্ব

 

পোস্টটি শেয়ার করূন, অন্যজনকে জানতে দিন

2 Comments so far:

  1. amr suru korar ischa . kitu sob kicu buje uthe parchi na .

    • FreelancerStory says:

      ফ্র্রিল্যান্সিং করতে হলে আপনাকে আইটির যেকোন একটি বিষয়ে দক্ষ হতে হবে । যেমন – ওয়েব ডিজাইন, গ্রাফিক্স ডিজাইন, এসইও , এফিলিয়েট মার্কেটিং, এন্ড্রয়েড এপস ডেভলাপমেন্ট ইত্যাদি। এসব বিষয়ের যেকোন একটিতে দক্ষ হলে আপনি ফ্র্রিল্যান্সিং করতে পারবেন আর এসব বিষয়ে দক্ষতা না থাকলে প্রথমে যেকোন একটি বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করতে হবে। দক্ষতা অর্জনের পর ফ্রিল্যান্সিং করতে পারবেন।