ড্রিবল কি এবং যেভাবে গ্রাফিক্স ডিজাইনাররা ড্রিবল থেকে ফ্রিল্যান্সিং প্রজেক্ট পায়

241310117_259016516071883_8787512915257476578_n

ড্রিবল হচ্ছে গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের জন্য একটি আন্তর্জাতিক ডিজাইন শেয়ারিং ওয়েবসাইট যেখানে বিশ্বের প্রায় সকল ডিজাইনাররা তাদের সৃষ্টিশীল ও নান্দনিক শৈল্পিক কাজগুলো প্রদর্শন করাতে পারেন। এখানে বিশ্বের প্রায় সকল ডিজাইনাররা তাদের ডিজাইন শেয়ার করে থাকে। এই প্ল্যাটফর্ম সারা বিশ্বের ডিজাইনারদের সাথে আপনাকে সংযুক্ত রাখতে সহায়তা করবে পাশাপাশি এখান থেকে ও প্রচুর ক্লায়েন্ট পাওয়া যায় যারা ফ্রিল্যান্সারদের কাজ দিয়ে থাকে। এর জন্য ড্রিবল কে বলা হয় “দ্যা হার্ট অফ দ্যা ডিজাইনার কমিউনিটি”। এখানে আপনি বিশ্বের প্রায় সকল বড় বড় ডিজাইনারদের ডিজাইন দেখে নিত্যনতুন  ডিজাইন কৌশল বা প্যাটার্ন শিখতে পারবেন একইসাথে আপনি আপনার ডিজাইন গুলো সুন্দরভাবে প্রফেশনালি প্রেজেন্টেশন করে শেয়ার করতে পারবেন অর্থাৎ এখানে শেখা এবং নিজেকে এক্সপোজ দুটি কাজ একইসাথে করতে পারছেন। ২০০৯ সালে ড্যান সেডারহোম ও রিচ থর্নেট দ্বারা স্থাপিত এই সাইট তৈরি হওয়ার পর থেকেই জনপ্রিয়তার তুঙ্গে। স্থাপিত হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত গ্রাফিক্স ও উইয়াই ইউএক্স ডিজাইনারদের কাছে পছন্দের বেশ বড় একটি জায়গা দখল করে নিয়েছে ড্রিবল। কিন্তু মজার ব্যাপার হচ্ছে ড্রিবল এর কোন সদর দপ্তর নেই এটি পুরোপুরিভাবে একটি রিমোট সংস্থা। পোর্টফলিও শো করানোর জন্য ড্রিবল বেশ জনপ্রিয় এবং চমৎকার একটি সাইট।

Dribbble designer meetup Bangladesh

ড্রিবল পোর্টফলিও কি?

এক্ষেত্রে আমরা প্রথমে  পোর্টফলিও সম্পর্কে কিছুটা জানার চেষ্টা করবো। পোর্টফলিও হচ্ছে আপনার অতীতে করা কাজ গুলো একত্রিত করে কোথাও রাখা। এক্ষেত্রে সেটা হতে পারে অনলাইন বা অফলাইন। একজন ফ্রিল্যান্সার বা রিমোট জব সিকার এর ক্ষেত্রে অনলাইন পোর্টফোলিওর শুরুত্ব অনেক।  একজন বায়ার যখন আপনাকে হায়ার করবে বা কাজ দিবে তখন সে কিভাবে বুঝতে পারবে বা আপনার ওপর আস্থা রাখতে পারবে যে আপনি কাজটি সঠিক ভাবে করতে পারবেন ? সে কিভাবে বুঝতে পারবে আপনি এই কাজে কতটা পারদর্শী ?  তো সেই সময় আমরা বায়ার কে  আমাদের পূর্ববর্তী কাজ তথা পোর্টফলিওর লিংক দিয়ে তাকে আশ্বস্ত করে থাকি যে তার কাজটি আমরা সঠিকভাবে করতে পারবো বা ইতিপূর্বে  আমি এই ধরনের কাজ অনেক করেছি, তখন বায়ার/ ক্লায়েন্ট আমাদের উপর অনেক আস্থা রাখে। অর্থাৎ সহজ ভাষায় যদি বলি পোর্টফলিও হচ্ছে কাজের প্রমাণপত্র। ফ্রিল্যান্সিং বা রিমোট জব গুলোর ক্ষেত্রে প্রাতিষ্ঠানিক সার্টিফিকেটের থেকে বেশি গুরুত্ব বহন করে পোর্টফলিও। ধরুন গ্রাফিক্স ডিজাইনার হিসেবে আপনার প্রাতিষ্ঠানিক সার্টিফিকেট আছে সেখানে আপনার স্কোর ও অনেক ভালো  কিন্তু আপনার কোন পোর্টফলিও নেই বা  ভালো কোন প্রজেক্ট নেই ক্লায়েন্ট কে দেখানোর জন্য সেইক্ষেত্রে অনলাইনে আপনার কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম। ফ্রিল্যান্সিং এর ক্ষেত্রে কাজ পাওয়ার মূল হাতিয়ার হিসেবে কাজ করে পোর্টফলিও এবং ভাল ক্লায়েন্ট ফিডব্যাক। অনলাইনে যার পোর্টফলিও যত বেশি সমৃদ্ধ তার কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা ততো বেশি। 

 

dribbblel

ড্রিবল ডিজাইন পোর্টফলিও শো করানোর জন্য বেশ জনপ্রিয় একটি সাইট। বিশ্বের টপ লেভেল এর ডিজাইনাররা তাদের কাজ গুলো ড্রিবলে রেখে থাকে। ড্রিবলে আপনি যখন কোন ডিজাইন আপলোড করবেন তখন অন্য ড্রিবল প্লেয়াররা আপনার ডিজাইনে লাইক, কমেন্ট আপ্রিসিয়েট করতে পারবে। আপনিও অন্যদের ডিজাইনে লাইক, কমেন্ট করতে পারবেন৷ ড্রিবলে আপনি যত সুন্দরভাবে আপনার ডিজাইনগুলো উপস্থাপন করতে পারবেন তত বেশি ভিজিটর আপনার ডিজাইনগুলো দেখবে এবং তত বেশি লাইক, কমেন্টস, আপ্রিসিয়েশন, ক্লায়েন্ট পাবেন। আপনার ডিজাইনে যত বেশি ভিউ হবে লাইক, কমেন্টস, আপ্রিসিয়েশন হবে আপনার ডিজাইন পোর্টফলিও তত বেশি শক্তিশালী হবে। ড্রিবলে যদি আপনার ভালো, সুন্দর এবং সাজানো-গোছানো পোর্টফলিও থাকে তাহলে এখান থেকেই আপনি অনেক কাজ পেয়ে যাবেন। প্রচুর বাংলাদেশী ফ্রিল্যান্সার upwork, fiverr, freelancer এ কাজ না করে শুধুমাত্র ড্রিবল থেকে freelancing প্রজেক্ট পায় এমনকি অনেকেই ফুল টাইম রিমোট জবেও হায়ার হয়। আমি পারসোনালি ১০০+ ফ্রিলান্সারকে চিনি যারা পুরোপুরি ড্রিবল নির্ভর ফ্রিল্যান্সার এবং মাসে কমপক্ষে ১০০০ ডলার এর অধিক আয় করে থাকেন।

কিভাবে ড্রিবলে একাউন্ট করব?

ড্রিবল এ মূলত তিন ধরনের একাউন্ট খোলা যায়। একটি হচ্ছে ডিজাইন শেয়ার করার সেলার একাউন্ট অপরটি বায়ার একাউন্ট এবং অন্যটি হচ্ছে ডিজাইন ইন্সপাইরেশন একাউন্ট। সেলার একাউন্ট এর মাধ্যমে আপনি আপনার ডিজাইনগুলো শেয়ার করতে পারবেন এবং ড্রিবল এর জব গুলোতে বিড করতে পারবেন। ফ্রিল্যান্সাররাই মূলত এই সেলার একাউন্ট করে থাকে। আর বায়ার একাউন্ট এর মাধ্যমে আপনি জব পোষ্ট করতে পারবেন এবং আপনার ইচ্ছানুযায়ী ডিজাইনার হায়ার করতে পারবেন। ড্রিবলে আপনি যখন সাইন আপ করবেন তখনই ড্রিবল আপনার কাছে জানতে চাইবে আপনি কোন ক্যাটাগরির একাউন্ট খুলতে চাচ্ছেন। এখানে উল্লেখ্য যে ডিজাইন শেয়ার সেলার একাউন্ট এর জন্য আপনার ড্রিবল ইনভাইট এর প্রয়োজন হবে অর্থাৎ অলরেডি ড্রিবল এ একাউন্ট আছে এমন একজন ড্রিবল প্লেয়ার আপনাকে ইনভাইট পাঠালেই কেবল আপনি ড্রিবল এ সেলার একাউন্ট করতে পারবেন। তবে বায়ার একাউন্ট এর জন্য ড্রিবল ইনভাইট এর প্রয়োজন হয় না।

ইনভাইটেশন ছাড়া কি ড্রিবল এ একাউন্ট করা যাবে ?

ইনভাইটেশন ছাড়া আপনি ড্রিবল এ সেলার একাউন্ট করতে পারবেন, তবে এক্ষেত্রে আপনার একাউন্টটি ড্রাফট একাউন্ট হিসেবে থাকবে, আপনি ড্রিবল প্লেয়ার হিসেবে গন্য হবেন না। এই একাউন্ট এর মাধ্যমে (ড্রাফট একাউন্ট) আপনি ডিজাইন শেয়ার করতে পারলেও অন্য ড্রিবল প্লেয়াররা আপনার এই ডিজাইন দেখতে পারবে না। আপনি কোন ড্রিবল শট দিতে পারবেন না। তবে আপনি অন্যদের ডিজাইন দেখতে পারবেন, লাইক, কমেন্ট এপ্রিসিয়েট করতে পারবেন। ড্রাফট একাউন্ট থেকে মূল একাউন্ট এ কনভার্ট হওয়ার জন্য অর্থাৎ ড্রিবল প্লেয়ার হওয়ার জন্য আপনাকে ড্রিবল ইনভাইট পেতে হবে। এখানে বলা বাহুল্য যে বাস্তবিক অর্থে এই ড্রাফট একাউন্ট এর কোন ভ্যালু নেই। 

Dribbble account types

প্রফেশনাল গ্রাফিক্স ও ইউ আই ইঊ এক্স ডিজাইনারদের ড্রিবল ব্যাবহারের কারন সমূহঃ

ড্রিবলে আপনি আপনার ডিজাইনগুলো সুন্দরভাবে সাজিয়ে উপস্থাপন করতে পারেন। ড্রিবল ব্যাবহারের মূল কারন হলো ডিজাইন সম্পর্কিত সৃষ্টিশীল, নান্দনিক ধারনা খুঁজে পাওয়া, ইন্সপাইরেশন নেওয়া, নিজের ডিজাইন অন্যকে দেখানো, নিজের ডিজাইনে অন্যের ফিডব্যাক নেওয়া, বিশ্বের ডিজাইন কমিউনিটির সাথে পরিচিত হওয়া।  কারন আমরা একটা কথা প্রায় সকলেই বলে থাকি যে, যেকোন কাজে সফল হতে হলে চাই ভালো পরিকল্পনা, আর ভালো পরিকল্পনার জন্য চাই ভালো ধারনা, ডিজাইনের ভাল ধারনা নেয়ার বেস্ট একটি সাইট হচ্ছে ড্রিবল। একটি ভালো ধারনা আপনাকে সফল পরিকল্পনা তৈরি করে সফলতার দিকে অনেকখানি এগিয়ে দিতে পারে। আর একটি ভালো ধারনা আপনি তখনই বাছাই করতে পারবেন যখন আপনার কাছে সে বিষয় সম্পর্কিত একাধিক ধারনা থাকবে। ড্রিবল ডিজাইনারদের অনেক বড় একটি কমিউনিটি। এ ধরনের ডিজাইন নেটওয়ার্কিং সাইট এর মাধ্যমে আপনি ভালো মানের ক্রিয়েটিভ ডিজাইনারদের ডিজাইন দেখে আপনার ডিজাইনের জন্য নতুন নতুন আইডিয়া পাবেন যা আপনার কাজে নান্দনিকতা আনবে এবং আপনার কাজের উৎসাহও বাড়িয়ে দেবে।

ড্রিবলে আপনি দুইভাবে উপকৃত হতে পারেন। প্রথমত বড় বড় ডিজাইনারদের ডিজাইন দেখে আপনার চিন্তায় অনেক ভাল ডিজাইন আসবে আপনার পোর্টফলিও অনেক প্রফেশনাল মানের হবে, অনেক ভিউস এবং লাইক এপ্রিসিয়েশন পাবেন যা আপনার কাজে উৎসাহ যোগাবে একইসাথে আপনার পোর্টফলিও কেও শক্তিশালী করে তুলবে, দ্বিতীয়ত এখান থেকে আপনি কাজের জন্য বিভিন্ন ধরনের ক্লায়েন্ট খুঁজে পেতে পারেন, ড্রিবলে প্রায় সময় ক্লায়েন্ট ই আপনাকে তার কাজের জন্য মেসেজ দিবে। প্রায় সময়ই দেখা যায় যে ক্লায়েন্টরা তাদের প্রতিষ্ঠানের জন্য বিভিন্ন ধরনের ডিজাইন কাজের জন্য ডিজাইনার বাছাই করার পূর্বে এই সব প্লাটফর্মে আসেন আর ঠিক তখনই আপনি আপনার উপস্থাপিত ডিজাইনগুলোর মাধ্যমে তাদের নজরে আসতে পারেন কাজের জন্য। এছাড়াও ড্রিবল এর জব এড়িয়া থেকে আপনি আপনার যোগ্যতা অনুযায়ী বিভিন্ন ধরনের ডিজাইন বেইজড জব গুলোতে বিড করে জব পেতে পারেন।

আপনি চাইলে এ সকল সাইটগুলোকে আইটেম মার্কেটিং-এর জন্য ব্যবহার করতে পারেন। আপনার project /shot এর সাথে যদি আইটেম এর লিংক দিয়ে দেন তাহলে আইটেম সেল এর সম্ভাবনা বেড়ে যেতে পারে। যেমন অনেকেই থিমফরেস্টের থিম লিংক এখানে দিয়ে দেয় সেই থিমের ডিজাইন স্ক্রীনশট ড্রিবলে আপলোড করে, এতে থিমফরেস্টের এর ঐ থিমটি বেশি সেল হয়।

তবে আপনাকে বিশেষ ভাবে মনে রাখতে হবে যে ড্রিবলে কিন্তু আপনি চাইলেই আপনার ডিজাইন আপলোড করতে পারবেন না। আর এর জন্য আপনাকে ড্রিবল ইনভাইট অবশ্যই পেতে  হবে। আর ড্রিবল কর্তৃপক্ষ না চাইলে এখানে কোন ড্রিবল প্লেয়ার কাউকে ইনভাইট করতে পারবে না ।

কাজ পাওয়ার জন্য কেমন একাউন্ট হওয়া চাই ?

ড্রিবল ডিজাইনারদের সবচেয়ে বড় একটি আন্তর্জাতিক কমিউনিটি। শুধুমাত্র ডিজাইন বেইজড প্ল্যাটফর্ম হওয়ায় এখানে কাজ পাওয়া অন্যান্য প্ল্যাটফর্ম থেকে তুলনামূলক অনেকটাই সহজ। কিন্তু এখানে প্রতিযোগিতা বেশি, কারন বিশ্বের ভালো ভালো ডিজাইনাররা এখানে কাজ করছে, এটি খুবি প্রফেশনাল একটি প্লেইস। তাই এখান থেকে কাজ পেতে হলে আপনাকে খুবই স্কিলড হতে হবে।

ড্রিবলে কাজ পেতে হলে যা যা ফলো করতে হবে-

প্রোফাইল  বিল্ডআপঃ প্রোফাইল টি খুব সুন্দর করে প্রফেশনাল ভাবে  সাজাতে হবে। এক্ষেত্রে ড্রিবলে টপ লেভেলের ডিজাইনারদের প্রোফাইল থেকে আইডিয়া নেয়া যেতে পারে ।  

মানসম্মত ডিজাইনঃ  প্রতিটা শর্টের সময় খেয়াল রাখতে হবে আপনার ডিজাইনটি কতটুকু মান সম্মত (পরিষ্কার,পরিচ্ছন) ও প্রফেশনাল । ডিজাইন ইম্প্রুভ করার জন্য আপনি শুরুর দিকে আপনার ডিজাইনকে ভাল কোন ডিজাইনার দ্বারা চেক করিয়ে নিতে পারেন এবং নিজের স্কিলড বাড়ানোর জন্য, ডিজাইনকে আরো বেশি প্রফেশনাল করার জন্য টপ লেভেলের ডিজাইনারদের ডিজাইন ফলো করতে পারেন। 

ট্রেন্ডের সাথে তাল মিলিয়ে ডিজাইন তৈরি করাঃ বিশ্বে সময়ের সাথে সাথে ডিজাইন ট্রেন্ডেও অনেক পরিবর্তন আসে। ধরুন একসময় UI/UX ডিজাইন নিয়ে এতটা মাথা ব্যাথা ছিল না। কিন্তু এখন প্রতিটা ডিজাইনেই UI/UX থাকা চাই। আবার বর্তমান সময়ে মোবাইল এপস ডিজাইন, মোশন গ্রাফিক্স, 3D Animations ডিজাইন বা ইলাষ্ট্রেশনের খুব প্রচলন চলছে । সেক্ষেত্রে নিজেকে এই সব বিষয়ের উপর দক্ষ করে তুলতে হবে।  

 

dribbbleaccount

 

ডিজাইন কন্সেপট পাওয়ার জন্য প্রচুর পরিমানে ডিজাইন দেখাঃ অনেক ডিজাইনারদের কাছ থেকে প্রায়ই একটা কথা শুনতে পাওয়া যায় যে- “আমি কি নিয়ে ডিজাইন করব ? ডিজাইন প্যাটার্ন কিরকম হবে ? কিভাবে আমার প্রতিটি ডিজাইন নান্দনিক করবো?  তার আইডিয়া পাই না” এইসব সমস্যা সমাধানের জন্য প্রচুর পরিমানে ভালো ভালো ডিজাইনারদের ডিজাইন দেখতে হবে, তাদের ডিজাইন কৌশল গুলো বোঝার চেষ্টা করতে হবে। যত বেশি ডিজাইন দেখবেন তত বেশি আইডিয়া জেনারেট হবে। 

কালার ম্যাচিং:ডিজাইনে বাহারি রঙের ছড়াছড়ি( অনেক রঙ ব্যবহার ) না থাকাই ভাল আবার কালার নির্ধারণ এবং কালার কম্বিনেশনের দিকটাও খেয়াল রাখতে হবে। 

শর্ট দেয়ার সময় সঠিক ভাবে নির্ধারণ করে নেয়া: ড্রিবলে সাপ্তাহের কোন দিনে, কোন সময় শর্ট দিবেন তার জন্য অনলাইনে ড্রিবলের কিছু রিসোর্স পাওয়া যায়, সেগুলোর সাহায্য নেয়া যেতে পারে। 

ধারাবাহিকতা বজায় রেখে শট দেয়া: প্রতিদিন শট দেয়ার দরকার নেই, আবার একটি শট দেয়ার পর পরবর্তী শট দিতে বেশি সময়ও নেওয়া যাবে না। নির্দিষ্ট একটা সময় নির্ধারণ করে ঠিক সেই সময়টাতেই শট দেয়া ।অন্যে ড্রিবল প্লেয়ারের ডিজাইনে লাইক, কমেন্ট এবং এপ্রিসিয়েট করা। 

এই সকল বিষয় গুলো মাথায় রেখে কাজ করা গেলে আশাকরা যায় আপনি সফল হবেন। তবে একটি বিষয় অবশ্যই মনে রাখবেন, যে কোন কাজে সফল হতে হলে প্রয়োজন দক্ষতা এবং ধৈর্য্য। আপনি আপনার দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে একনিষ্ঠ ভাবে ধৈর্য্য ধরে এগিয়ে গেলে আপনি অবশ্যই সফল হবেন।

 

লেখকঃ নাজমুল হক

ফ্রিল্যান্সিং এর বিভিন্ন আপডেটেড ইনফরমেশন পেতে আমাদের FreelancerStory Bangladesh  ফেসবুক গ্রুপে যুক্ত থাকুন|

 

 

 

2 thoughts on “ড্রিবল কি এবং যেভাবে গ্রাফিক্স ডিজাইনাররা ড্রিবল থেকে ফ্রিল্যান্সিং প্রজেক্ট পায়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সার্চ ফ্রিল্যান্সারস্টোরি

Payoneer Signup

জনপ্রিয় লেখাসমূহ

Find us on facebook

Scroll to top