পিপল পার আওয়ারে কাজ করবেন কিভাবে?

working on people per hour

পিপল পার আওয়ার বা পিপিএইচ (www.peopleperhour.com) বর্তমানে একটি জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেস। মার্কেটপ্লেসের বিস্তারিত ধারনা এবং কিভাবে এই মার্কেটপ্লেসে কাজ করবেন তা জানা যাবে এই আর্টিকেলে । আমি মূলত আলোচনা করব মার্কেটপ্লেস সম্পর্কে, কি কি কাজ পাওয়া যায় এ সম্পর্কে এবং নতুন একজন কিভাবে এই মার্কেটপ্লেসে কাজ শুরু করতে পারবে তার একটি বিস্তারিত গাইডলাইন দেয়ার চেষ্ঠা করব। গাইডলাইনটি কয়েকটি পর্বে লিখা হবে।

 

people per hour

 

পিপল পার আওয়ার যুক্তরাজ্যভিত্তিক একটি অনলাইন মার্কেটপ্লেস। প্রচলিত অনলাইন মার্কেটপ্লেস যেগুলো ভিন্ন ভিন্ন কাজ আউটসোর্স বা ফ্রীল্যান্সিং করবার জন্য সুযোগ দিয়ে থাকে তাদের মতোই একটি অনবদ্যস্কিল বিক্রি করবার মার্কেটপ্লেস। পিপল পার আওয়ার সম্পর্কে বিসতারিত জেনে নিন এই লিংকে http://www.freelancerstory.com/freelance-marketplace-people-per-hour-1st-chapter/

জনপ্রিয় এই অনলাইন মার্কেটপ্লেসে আপনি প্রায় সব ক্যাটাগরির কাজই করতে পারবেন। যেমন – ডিজাইন, ওয়েব ডেভলাপমেন্ট, রাইটিং এন্ড ট্রান্সলেশন, সেলস এন্ড মার্কেটিং, ভিডিও ফটো ওডিও, সোস্যাল মিডিয়া, বিজনেস সাপোর্ট এবং সফ্টওয়ার ডেভলাপমেন্ট এন্ড মোবাইল ক্যাটাগরি।

 

people-per-hour-job-category

 

প্রতিটি ক্যাটাগরিরই রয়েছে আবার অনেক সাব ক্যাটাগরি, যেমন ডিজাইন ক্যাটাগরির সাব ক্যাটাগরিতে রয়েছে Logo Design, Wireframes, Web Pages, Icon/Badges, Flayer Design সহ আরো অনেক সাব ক্যাটাগরি আর প্রতিটি সাব ক্যাটাগরিতে প্রতিদিনই পোস্ট হয় শত শত জব এবং এই মার্কেটপ্লেসে রয়েছে অফুরন্ত কাজের সুযোগ।

 

পিপল পার আওয়ার এ যেসব কাজ বেশি পাওয়া যায়:

পিপিএইচে নানান ধরনের কাজ পাওয়া যায়, প্রোগ্রামিং, ডিজাইনিং থেকে শুরুকরে আর্টিকেল রাইটিং, ডাটা এন্ট্রি কিছুই বাদ নেই যা পিপিএইচের জব লিস্টে প্রতিদিন পোস্ট হয় না। আওয়ারলি। সবচেয়ে বেশী কাজ বেশি পাওয়া যায় ডিজাইন এবং ওয়েব ডেভলাপমেন্ট ক্যাটাগরিতে। আসুন দেখে নিই কাজের ক্যাটাগরি অনুযায়ি পিপিএইচে সহজেই পাওয়া যায় এমন কিছু কাজের তালিকা।

ডিজাইন ক্যাটাগরির জব:

১) লগো ডিজাইন: লোগো ডিজাইনিং গ্রাফিক্স ডিজাইনের একটি অংশ, প্রচুর লোগো ডিজাইনের কাজ পিপিএইচে প্রতিনিয়ত পোস্ট হয়, বেশিরভাগ ইউকে এবং ইউএস ভিত্তিক বায়ারেরা তাদের প্রতিষ্ঠানের জন্য লোগো তৈরির কাজ ফ্রীল্যান্সারদের দিয়ে থাকেন। ভালো ও বিশ্বমানের লোগো তৈরি করতে বায়ারেরা বেশ ভালো পরিমান অর্থ বরাদ্দ রাখে ফলে এই বিষয়ে দক্ষ ফ্রীল্যান্সারেরা অধিক পরিমান লাভ করতে পারে লোগো ডিজাইনিং এর মাধ্যমে।

২) ফ্লায়ার এ বিজনেস কার্ড ডিজাইন: অনেক কোম্পানিই তাদের সার্ভিসগুলো ক্রেতাদের সামনে দেখানের জন্য ফ্লায়ার বা ব্রশিউর ডিজাইন করে থাকে। এধরনের অনেক গ্রাফিক্সের কাজ এ মার্কেটপ্লেসে পাওয়া যায়। বায়ার রা এ মার্কেটপ্লেসের মাধ্যমে প্রচুর বিজনেস কার্ডের কাজ কাজ দিয়ে থাকে।

৩) ওয়েব এলিমেন্টস: ওয়েবসাইটের টেমপ্লেট (পিএসডি)থেকে শুরু করে ভিবিন্ন প্রমোশনাল ব্যানার, নিউজলেটার, প্রাইসটেবিল, বাটন ইত্যাদির অনেক কাজ রয়েছে এ মার্কেটপ্লেসে।

৪) অন্যান্য: এ মার্কেটপ্লেসে গ্রাফিক্সের আরো যেসব কাজ পাওয়া যায় সেগুলো হচ্ছে – ইলাসট্রশেন, লিফলেট ডিজাইন, টিশার্ট ডিজাইন, ত্রিডি এবং ক্যাড ডিজাইন, এনিমেশন, ম্যাগাজিন ডিজাইন সহ আরো অনেক কাজ। আপনি যদি গ্রাফিক্স ডিজাইনে দক্ষ হয়ে থাকেন তাহলে এ মার্কেটপ্লেসে প্রয় সব ধরনের কাজই করতে পারবেন।

ওয়েব ডেভলাপমেন্ট ক্যাটাগরির জব:

১) ওয়েব ডিজাইন: প্রতিনিয়ত শত-সহস্র নতুন ওয়েবসাইট উন্মুক্ত হচ্ছে, এর ফলে ওয়েবের ইন্টারফেস ডিজাইনের চাহিদা বাড়ছে ব্যাপক হারে, পিপিএইচও এই সুযোগে বসে নেই চুপটি করে, ফ্রীল্যান্সারদের অফার করছে প্রচুর বায়ারের দেয়া ওয়েব ডিজাইনিং এর কাজ, লোগোর পরেই ওয়েব ডিজাইনিং এর জনপ্রিয়তা পিপিএইচে সর্বাধিক।

২) ওয়েব প্রোগ্রামিং: যারা ওয়েব প্রোগ্রামিং ভাল পারেন এবং ওয়েব এপ্লিকেশন তৈরি করতে চান তাদের জন্য এ মার্কেটপ্লেসে রয়েছে প্রচুর কাজের সুযোগ। এখানে ভিবিন্ন ওয়েব এপ্লিকেশন তৈরির পাশাপাশি ভিবিন্ন ফ্রেমওয়ার্কের প্লাগিন এবং মডিউল তৈরির অনেক কাজ রয়েছে।

৩) ওয়ার্ডপ্রেস থিম: জনপ্রিয় ও ব্যাপুল ব্যাবহৃত ব্লগ-ওয়েবসাইট লেখার খ্যাতনামা টুল ওয়ার্ডপ্রেসের থিম বানানোর কাজের চল আছে পিপিএইচেও, শুধুমাত্র থিম ডেভেলপমেন্টের কাজ করিয়ে বড় আকারের পয়সা দিচ্ছে বায়ার ফ্রীল্যান্সারদের অহরহ।

৪) ফ্রেমওয়ার্ক ও ইকমার্স: এ মার্কেটপ্লেসে রয়েছে বিভিন্ন ওয়েব ফ্রেমওয়ার্ক – ওয়ার্ডপেস, জুমলা, দ্রুপাল এর কাজ তাছারাও রয়েছে বিভিন্ন ইকমার্স ওয়েবসাইট তৈরির কাজ। ইকমার্স ওয়েবসাইট তৈরির জন্য এখানে ম্যাজেনটো, ওপেনকার্ট, প্রেস্তাশপ ফ্রেমওয়ার্কের অনেক কাজ রয়েছে।

রাইটিং এন্ড ট্রান্সলেশন ক্যাটাগরির জব:

১) কপিরাইটিং: কন্টেন্ট রাইটিং, আর্টিকেল রাইটিং বা সম্মিলিতভাবে গ্রাহকের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করে নতুন কোনো প্রডাক্ট, ওয়েবসাইট বা প্রতিষ্ঠান নিয়ে মতামত শব্দের কারুকাজে লেখার দক্ষতাকেই কপিরাইটিং বলা যেতে পারে, এমন কাজের ভালো বাজার আছে পিপিএইচে, অনেক ক্লায়েন্টই লেখালেখি ভিত্তিক কাজ উপযুক্ত দরে কিনে নিতে আগ্রহী হয়।

বিজনেস সাপোর্ট ক্যাটাগরির জব:

১) অ্যাকাউন্ট সাপোর্ট: অনলাইনে বানিজ্য এখন অনেকটাই রোজকার কাজে পরিনত হয়েছে, অন্যান্য অনলাইন মার্কেটপ্লেসের মতো, ভার্চুয়াল কল-সেন্টার গোত্রীয় একটি প্রতিষ্ঠানে ভার্চুয়াল অ্যাকাউনটেন্ট নিয়োগের কাজের চাহিদা পিপিএইচেও আছে।

সফ্টওয়ার ডেভলাপমেন্ট এন্ড মোবাইল ক্যাটাগরির জব:

১) প্রোগ্রামিং: জাভা, পিএইচপি, পার্ল, সি++ থেকে শুরু করে যতগুলো জনপ্রিয় কম্পিউটারের প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ রয়েছে, সবকটার কদর আছে এই মার্কেটপ্লেসে, তাই প্রোগ্রামার ভাইয়েরা সহজেই তাদের স্কিল বিক্রয় করতে পারবেন যেকোনো নামি দামি ক্লায়েন্টের ভিডিওগেম বা সফটোয়্যার ফার্মের কাছে, আর দামের দিক থেকে কার্পন্যের স্বীকার হবেন না মোটেই।

সেলস এন্ড মার্কেটিং ক্যাটাগরির জব:

১) ডেটা এন্ট্রি: অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি যে পিপিএইচে ডেটা এন্ট্রির বাজার ক্ষুদ্র হলেও রয়েছে, তবে খুব সাধারনত এমন ধরনের কাজ উপরে উল্লেখিত কাজের মতো সচরাচর মেলে না।

২) অন্যান্য: এসব ছাড়া রয়েছে, লিগ্যাল সার্ভিসের কাজ, ভয়েজ ওভার রেকর্ডিং বা ধারা ভাষ্য রেকর্ডিং এর কাজ, লিড জেনেরেশান বা সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশানের কাজ, ভিডিও এডিটিং, ট্রান্সলেশানসহ বিবিধ প্রকারের আরো অনেক কাজ।

 

পিপল পার আওয়ার এর মূল বৈশিষ্ঠ – আওয়ারলি :

 

peopleperhour hourly

 

পিপল পার আওয়ার আন্যান্য সব মার্কেটপ্লেস থেকে ভিন্ন তার মূল কারন হচ্ছে আওয়ারলি। আমারা অন্নান্য মার্কেটপ্লেসে বিড/এপ্লিকেশন করে কাজ পাই আর এ মার্কেটপ্লেসে বিড/এপ্লিকেশন এর পাশাপাশি আওয়ারলি তৈরি করেও কাজ পাওয়া যায়। আওয়ারলি হচ্ছে একটি অফার – যেমন আপনি যদি লগো ডিজাইনের একটি অফার দিয়ে একটি আওয়ারলি তৈরি করেন তখন ক্লায়েন্ট/বায়ার রা সেটি দেখতে পাবে এবং তাদের প্রয়োজন হলে এটির অর্ডার করবে। সেক্ষেত্রে আপনি একটি আওয়ারলি তৈরি করেই অনেকগুলো অর্ডার পেতে পারেন। আপনাকে বারবার বিড করতে হবে না।

 

পিপল পার আওয়ারে কাজ কিভাবে শুরু করবেন:

পিপল পার আওয়ারে কাজ শুরু করতে হলে প্রথমেই আপনাকে যেকোন একটি কাজে দক্ষ হতে হবে। আপনি উপরে উল্লেখিত যেকোন একটি কাজ জানলেই এখানে কাজ করতে পারবেন। যেমন আপনি যদি ফটোশপ দিয়ে বিজনেস কার্ড তৈরি করতে পারেন তবে আপনি এখানে এধরনের কাজগুলো করতে পারবেন। আপনি যদি HTML, CSS দিয়ে ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন তবে ওয়েবসাইট ডিজাইনের প্রচুর কাজ এই মার্কেটপ্লেসে রয়েছে যা আপনি করতে পারবেন।

আর আপনি যদি কোন কাজ না জানেন তবে আপনাকে প্রথমে যেকোন একটি কাজ শিখতে হবে তারপর এই মার্কেটপ্লেসে কাজ করতে পারবেন। ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে কাজ করতে হলে কিছু স্টেপ রয়েছে -এই স্টেপগুলো অতিক্রম করতে পারলে আপনি ফ্রিল্যান্সিং করতে পারবেন।

পর্যায় -১ : কোন একটি কাজে দ্ক্ষ হওয়া । কাজ জানা বা শেখা। কাজ জানা থাকলে আপনি সহজেই কাজ করতে পারবেন আর না জানা থাকলে আপনি কাজটি শিখে নিতে পারেন। কাজ শেখা ছাড়া আপনি এখানে ভাল অবস্থানে যেতে পারবেন না বা ভালো আয় করতে পারবেন না। আমি পরবর্তী পর্বে আলোচনা করব আপনি কিভাবে কাজ শিখবেন।

পর্যায় -২ : কাজ শেখার পর প্রয়োজন হয় মার্কেটপ্লেসগুলোতে প্রোফাইল তৈরি করা- যেমন এখানে পিপল পার আওয়ারে প্রোফাইল তৈরি করা, প্রোফাইল সাজানো এবং পোর্টফলিও রাখা এবং নিজেকে ভালোভাবে উপস্থাপন করা।

পর্যায় -৩ : সবশেষে প্রয়োজন পরে মার্কেটপ্লেসটি ভালভাবে বুঝা, যেমন এই মার্কেট্পলেসে কিভাবে বিড করতে হয়, কিভাবে প্রজেক্ট ম্যানেজম্যান্ট করতে হয়, কিভাবে পেম্যান্ট তুলতে হয়, কোন সমস্যায় কিভাবে সাপোর্ট নিতে হয় ইত্যাদি।

পরবর্তী পর্বগুলোতে আমরা দেখব আপনি কিভাবে কাজ শিখবেন, কিভাবে প্রোফাইল বিল্ডআপ করবেন, মার্কেটপ্লেসটির ব্যাবস্থাপনা সম্পর্কে ডিটেলস জানবেন, কিভাবে কাজ শুরু করবেন।

 

পিপল পার আওয়ারে আপনার একাউন্ট করুন
sign-up-peopleperhour

 

পিপল পার আওয়ারে কাজ করবেন কিভাবে – ২য় পর্ব

 

লেখক: নাজমুল হক
বিঃদ্রঃ – এই লেখাটি “মাসিক কম্পিউটার জগৎ” ম্যাগাজিনের “অক্টোবর ২০১৫” সংখ্যায় প্রকাশিত হয়েছে।

 

 

সার্চ করুন

web hosting

জনপ্রিয় লেখাসমূহ

Find us on facebook

Scroll to top